For English Version
শুক্রবার, ১৪ মে, ২০২১, রেজি: নং- ০৬
Advance Search
হোম অনলাইন স্পেশাল

শ্রীমঙ্গলে পানি সংকট

Published : Saturday, 1 May, 2021 at 3:01 PM Count : 676
রুপম আচার্য্য

দীর্ঘদিন ধরে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় মৌলভীবাজারেশ্রীমঙ্গল শহরের বিভিন্ন এলাকায় পানির সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

পানির স্তর ২২ থেকে ২৫ ফুট নিচে নেমে যাওয়ায় টিউবওয়েল ও ডিপ-টিউবওয়েল থেকে পানি উঠানো যাচ্ছে না। 

তবে বৃষ্টি হলে কিছুদিনের মধ্যে পানির ঘাটতি পূরণ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তর।

শনিবার দুপুরে শহরের কলেজ রোডে গিয়ে দেখা যায়, আগের ডিপ টিউবওয়েল থেকে পানি না উঠায় নতুন করে আবার ডিপ-টিউবওয়েল বসাচ্ছেন এক ব্যক্তি। শুধু কলেজ রোডই নয়, শহরের মিশন রোড, মৌলভীবাজার রোড, সরভী পাড়া, ভুনবীর ইউনিয়নের ভীমশী গ্রাম, সবুজ বাগ, রুপশপুর, কালিঘাট রোডসহ শহর এবং শহরের বাইরের বিভিন্ন এলাকাও পানির সংকট দেখা গেছে।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, শ্রীমঙ্গল পৌরসভার ভেতরে নিরাপদ পানি সরবরাহের জন্য সরকারি ভাবে প্রায় ১৪টি ডিপ-টিউবওয়েল বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। এবং পৌরসভার পাঁচটি বড় বড় পাম্প আছে। যেগুলো দিয়ে প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে শহরের ভেতর বিভিন্ন এলাকায় পানি দেওয়া হচ্ছে। 

শহরের কলেজ রোডের বাসিন্দা কাওসার আহমেদ বলেন, কিছু দিন ধরে পানি উঠছে না। এখন মোটর দিয়ে পানি ওঠাচ্ছি, খুব অল্প অল্প পানি আসছে। আগে দুই ঘন্টায় ট্যাংকি ভরে যেত। আর এখন সময় লাগছে ৫/৬ ঘন্টা। খরার কারণে পানির স্তর অনেক নিচে নেমে যাওয়ায় এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবে বৃষ্টি হলে আবার ভালো করে পানি পাওয়া যাবে।

লিটন দেব বলেন, পানি আগের মতো ওঠে না। পাম্প বাতাস ধরে। পানি নিচে নেমে গেছে। পৌরসভায় যখন পানি তুলে তখন আমরা পানি শূন্য হয়ে যাই। বিশেষ করে সুরভী পাড়ার মাথায় ইব্রাহিমপুরের মেশিন যখন চালু করে তখন পানি পাওয়া যায় না। 

নিবাস নামে আরেক ব্যক্তি বলেন, আমাদের ভুনবীর ভীমশী গ্রামে আরও দুই মাস আগ থেকে এই পানির সমস্যা। প্যারাগন কোম্পানী বড় বড় ৫/৬ টা ডিপ টিউবওয়েল বসিয়েছে। এরপর থেকেই আমাদের পানির সমস্যা।

শ্রীমঙ্গল উদয়ন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কবিতা দাশ বলেন, গত বছর যখন উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন এসব পাম্প বসানো হল তখন থেকেই এই সমস্যার শুরু। তখন আপনি আমি সবাই সমস্যায় পরেছিলাম। 

ঝিনুক বৈদ্য বলেন, ১৫০, ২০০, ২৫০ এই লেয়ারের যে নলকূপগুলো আছে তার ৮০ শতাংশ নলকূপে পানি আসে না।

ইমন দাশ বলেন, বিষয়টা অনেক দিন ধরে উপলব্ধি করছি। আমাদের পাশের একটি ডিপ টিউবওয়েল একবারেই পানি শূন্য, পাশাপাশি একটি ছোট্ট ছড়া ছিলো যেটাতে আগে মানুষ সমান জল পেত। এলাকার সবাই সেখানে স্নানসহ সকল কাজ করতো। কিন্তু এখনো দেখলে মনে হয় কেউ যেন জঙ্গলের মাঝখানে রাস্তা তৈরি করেছে। আগামী দুই এক বছরের ভেতর আমার মনে হয় শ্রীমঙ্গলবাসী প্রচুর পানির অভাব বোধ করবে।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তর শ্রীমঙ্গলের উপ-প্রকৌশলী মো. সাইফুল ইসলাম অবজারভারকে বলেন, দীর্ঘ দিন বৃষ্টি না হওয়ার কারণে শ্রীমঙ্গলে কিছুটা পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এখন খরার সময় দেখে এই পানি সংকট। তবে বৃষ্টি হলে তখন আর পানির সংকট থাকবে না। পানি সংকটের ঘাটতি পূরণ হয়ে যাবে। বিশেষ করে এই উপজেলায় নদী-নালা, খাল নেই দেখে পৌরসভা বড় পাম্প দিয়ে ভূগর্ভস্থ থেকে পানি উঠাচ্ছে। দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হবার কারণে শহরের বিভিন্ন এলাকার পানির স্তর ২৫ ফুট নিচে নেমে গেছে। 

তিনি আরও বলেন, আমরা সবাইকে বলেছি যাদের ব্যক্তিগত নলকূপ পানি পাচ্ছে না, তারা যেন সরকার থেকে স্থাপন করা ডিপ-টিউবওয়েল থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করেন। ইচ্ছে করলে পৌরসভার পানি লাইন নিয়ে তাদের পানির ঘাটতি পূরণ করতে পারে। আমাদের দেওয়া সরকারি ডিপ টিউবওয়েল যারা নিয়েছেন তাদেরকেও আমরা বলে দিয়েছি, যাদের পানির সংকট আছে তাদেরকে পানি দেওয়ার জন্য।

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60; Online: 9513959; Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft