For English Version
রবিবার, ২০ জুন, ২০২১, রেজি: নং- ০৬
Advance Search
হোম অনলাইন স্পেশাল

রূপের পসরা সাজিয়েছে জারুল ফুল

Published : Sunday, 25 April, 2021 at 5:18 PM Count : 377
হাসান মাহমুদ রিপন

গ্রীষ্মের খর প্রকৃতিতে ফুল-ফলের বিপুল সমারোহ। অপরূপ মহিমাভরা পরিবেশ এখন প্রকৃতিতে। প্রকৃতি তো উদার ও মুক্ত। করোনায় প্রাণভরে যেন শ্বাস নিচ্ছে প্রকৃতি। এ প্রকৃতিতে এখন সেজেছে মনমাতানো জারুল ফুল। পাপড়ির নমনীয় কোমলতা, দৃষ্টিনন্দন বর্ণচ্ছটা নিয়ে প্রকৃতিকে আরও সুন্দর করে সাজিয়ে তোলে এ জারুল ফুল।

বাংলার প্রাচীন রাজধানী নারায়ণগঞ্জেসোনারগাঁওয়ে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের নৈসর্গিক অঙ্গণে ঝাড়লণ্ঠনের মতো পুষ্পগুচ্ছ-রূপের পসরা সাজিয়ে বসেছে এ জারুল ফুল। জারুল গাছে বেগুনি রঙের যেন ফুলের বন্যা।

ফাউন্ডেশনের দৃষ্টিনন্দন লেকের পাড়ে লালচে-বেগুনি রঙের জারুল ফুলের দীর্ঘ মঞ্জরী যেকোনো পর্যটককে মোহিত করবেই। তবে লকডাউনে জাদুঘর বন্ধ থাকায় এবার সে সুযোগ নেই। 

গ্রীষ্মের শুরুতে জারুলের উজ্জ্বল প্রস্ফুটনে চারিদিকে উচ্ছলতার বিকিরণ মুগ্ধ করে না এমন সৌন্দর্য-পিপাসু দুষ্পাপ্য। করোনার প্রভাবেও করুণ মায়াবী দৃষ্টি মেলে রঙিন হাসির পরশে দুলছে এ জারুল ফুল। এ যেন গ্রীষ্মের প্রচন্ড দাবদাহে এক টুকরো রঙিন হিমেল হাওয়া। কবি
জীবনানন্দ দাশের কাব্যে গ্রীষ্মের খরতাপের একটু প্রশান্তিতে বেগুনি আভার
জারুল ফুলের সরব উপস্থিতি লক্ষণীয়। 

জারুল ফুল আর ফলের বিপুল সমাহার গ্রীষ্মে প্রকৃতিকে দিয়েছে অনন্য মনোরম মর্যাদা। পাশাপাশি রসালো আম, জাম, কাঁঠাল ও ফল ফলাদির সঙ্গে ফুলের মাধ্যমে প্রতি বছর নয়নাভিরাম অস্তিত্বের জানান দেয়। জারুল ফুল এ মৌসুমেরই অন্যতম দৃষ্টিনন্দন ফুল। গরমের মাত্রা যতই বাড়ছে জারুল ফোটার তীব্রতা ততই বাড়ছে। তাপমাত্রা কমার সঙ্গে সঙ্গে জারুলের মুগ্ধতা কমতে থাকে।

গ্রাম বাংলায় জারুল গাছ একটি অতি পরিচিত নাম। প্রকৃতিকে মাতিয়ে রাখতে জারুল ফুলের কোন জুড়ি নেই। জারুল সাধারণত জমির আইলে, রাস্তার পাশে পরিত্যক্ত অবস্থায় এমনিতেই জন্মায়। পাপড়ির নমনীয় কোমলতায় দৃষ্টিনন্দন বর্ণচ্ছটা নিয়ে প্রকৃতিকে আরও সুন্দর করে সাজিয়ে তোলে জারুল ফুল। পাতা ঝরা বড় আকারের বৃক্ষ। বাকল মসৃণ ও রং ধূসর বা পিতাভ ধূসর। ফুল বেগুনি। কাঠ শক্ত মসৃণ ও টেকসই। সহজে কাজ করা যায়। পানির নিচেও ব্যবহার করা যায়।

গাছের উচ্চতা ৮০ থেকে ১০০ ফুট বা তদূর্ধ্ব। জারুল লিথ্রাসী গোত্রের উদ্ভিদ। এর অর্থ সুন্দর-শোভন। ইংরেজি নাম কুইন ফ্লওয়ার।

জারুল ফুলের আদি নিবাস শ্রীলংকা। জারুল ভারতীয় উপমহাদেশের নিজস্ব বৃক্ষ। বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও চীন, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, শ্রীলংকা, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন প্রভৃতি অঞ্চলে জারুল ফুল গাছের দেখা মেলে।

নিম্নাঞ্চলের জলাভূমিতেও এটি ভালো ভাবে বেড়ে উঠতে পারে, তবে শুকনো এলাকাতেও এদের মানিয়ে নিতে সমস্যা হয় না। 

সোনারগাঁওয়ের গ্রামাঞ্চলে, লোক শিল্প ফাউন্ডেশন এলাকায় ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ধারে জারুল গাছ পাওয়া যায়।

জারুল গাছে এপ্রিল থেকে জুন মাসে ফুল আসে। জারুল গাছ যখন ফুলে ফুলে ভরে
যায় তখন চারদিক ঘ্রাণে মোহিত হয় না বটে, দৃষ্টিনন্দন নিলাভ, বেগুনী রাশি শোভায় সবারই চোখ আটকে যায়। আকৃতি ভিন্ন হলেও জারুল ফুলের রং সাধারণত কচুরীপানা ফুলের মতো বেগুনী আর সাদার মিশেল। 

তবে ইট ভাটার ‘ক্ষুধা' নিবারণসহ নানা কারণে এ গাছটি আগের মতো দেখা যায় না। জারুল ফুল শুধুই চোখের শান্তি যোগালেও এ গাছের কাঠ ঘর-গৃহস্থালীর কাজে লাগে। শক্ত ও ভারী বলে জারুল কাঠ নৌকা, লাঙ্গলসহ অনেক আসবাবপত্র ও খুঁটি হিসেবে ব্যবহার করা
যায়। জারুল কাঠ লালচে রঙের, অত্যন্ত শক্ত ও মূল্যবান। 

জারুল গাছের ভেষজ গুণাগুণও রয়েছে। এর বীজ, ছাল ও পাতা ডায়াবেটিস রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও জ্বর, অনিদ্রা, কাশি ও অজীর্ণতায় জারুল উপকারী।

জারুলকে বাংলার চেরি বলা হয়। কি অপূর্ব হয়ে ফুল ফোটে। চোখ ভরে যায় তার রূপে। সোনারগাঁওয়ে লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের (সোনারগাঁও যাদুঘর) বিশাল চত্বরে এ মৌসুমে যখন ফুল ফুটতে থাকে, তখন যাদুঘরের প্রবেশ পথ থেকে চোখ ফেরানো দায়। বেগুনি রঙের আগুন কি হয়? হওয়া উচিত। জারুল যেন বেগুনি আগুন।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা এ কে এম মুজ্জাম্মিল হক মাসুদ বলেন,  লোক ও কারুশিল্প জাদুঘরের ভেতরে অসংখ্য জারুল গাছ রয়েছে। এখন শুধু দৃষ্টিপাত হয় শুধু জারুল ফুলে। সভ্য মানুষের অসভ্য চাপে আছেন প্রকৃতি জননী। তথাপি চাকরির সুবাদে আমরা দুদশক পুষ্পশোভিত অপরূপ জারুল তরুর রূপসুধা পান করে আসছি। 

তিনি বলেন, প্রতিদিন প্রাতঃভ্রমণে জারুলের দীর্ঘ পুষ্পমঞ্জরীর উচ্ছাস দেখে বিমোহিত হয়েছি। জাদুঘর অঙ্গণের সৌন্দর্য বর্ধনে এবং পরিবেশের সামগ্রিক শুচিতা রক্ষায় ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ জারুল তরু রোপণের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। পথ তরু হিসেবে জারুল আদর্শ। জারুল পরিবেশ রক্ষায় বিশেষ উপযোগী। তাই জারুল তরুর সুসমন্বিত বিন্যাসে প্রাণের পটভূমি সোনারগাঁও জাদুঘরের পরিবেশ অপরূপ নান্দনিক শোভামন্ডিত হয়ে উঠতে পারে।

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60; Online: 9513959; Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft