For English Version
শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০
Advance Search
হোম অর্থ ও বাণিজ্য

সুন্দরবনে মধু আহরণ ও মোম উৎপাদন বেড়েছে

Published : Tuesday, 22 September, 2020 at 4:50 PM Count : 107

করোনা পরিস্থিতিতে সুন্দরবনে দর্শণার্থী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বনের অভ্যন্তরে বৃক্ষরাজিতে মৌমাছির আবাসস্থল বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ফলে চলতি বছরে মধু ও মোমের উৎপাদন বেড়েছে।

বাগেরহাটের  শরণখোলা, মোংলা, মোরেলগঞ্জ এবং খুলনা বিভাগের দাকোপ উপজেলার বনাঞ্চল নিয়ে গঠিত সুন্দরবনের পূর্ব বন বিভাগ থেকে চলতি বছরে এক হাজার ২২০ কুইন্টাল মধু আহরণ করেছেন মৌয়ালরা। মোম উৎপাদন হয়েছে ৩৬৬ কুইন্টাল।

বাগেরহাটস্থ সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগ অফিস থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবছরে সুন্দরবন থেকে ১ হাজার ২২০ কুইন্টাল মধু আহরণ করেছেন মৌয়ালরা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মধু আহরণ হয়েছিল ৭৪২ কুইন্টাল। অর্থ্যাৎ ২০১৯-২০ অর্থবছরে আগের বছরের চেয়ে ৪৭৮ কুইন্টাল মধু বেশি আহরিত হয়েছে। এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে মৌয়ালরা ৪৮৮ কুইন্টাল মধু আহরণ করেন।

২০১৯-২০ অর্থবছরে রাজস্বের পরিমাণও অনেক বেড়েছে। এই অর্থবছরে মধু থেকে রাজস্ব এসেছে ৯ লক্ষ ১৫ হাজার ৩৭৫ টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রাজস্ব ছিল ৫ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮৭৫ টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ছিল ৩ লক্ষ ৯৩ হাজার ৪৮০ টাকা মাত্র।

এদিকে, মধুর উৎপাদনের সঙ্গে মোমের উৎপাদনও বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে সুন্দরবনের পূর্ব বন বিভাগে ৩৬৬ কুইন্টাল মোম উৎপাদন হয়েছে। এ থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৩ লক্ষ ৬৬ হাজার ১৫০ টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোমের উৎপাদন ছিল ২২৯ কুইন্টাল এবং রাজস্ব ছিল দুই লক্ষ ২৯ হাজার ৬শ টাকা। ২০১৭-১৮ বছরে মোমের উৎপাদন ছিল ১৫৮ কুইন্টাল এবং রাজস্ব আদায় হয়েছিল এক লক্ষ ৫৮ হাজার ৪৫৩ টাকা।





সুন্দরবন নিয়ে গবেষণা করা প্রতিষ্ঠান সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম জানান, মৌমাছিরা ফুলে ফুলে বিচরণ করে ফুলের রেণু ও মিষ্টি রস সংগ্রহ করে পাকস্থলীতে রাখে। তারপর সেখানে মৌমাছির মুখ নিঃসৃত লালা মিশ্রিত হয়ে রাসায়নিক জটিল বিক্রিয়ায় মধু তৈরি হয়। এরপর মুখ থেকে মৌচাকের প্রকোষ্ঠে জমা করা হয়। স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও যাবতীয় রোগ নিরাময়ে মধুর গুণ অপরিসীম।

তিনি আরও জানান, মধুর প্রধান উপকরণ সুগার। সুগার বা চিনি আমরা অনেকেই এড়িয়ে চলি। কিন্তু মধুতে গ্লুকোজ ও ফ্রুকটোজ এ দুটি সরাসরি মেটাবলাইজড হয়ে যায় এবং ফ্যাট হিসেবে জমা হয় না। এতে অ্যালুমিনিয়াম, বোরন, ক্রোমিয়াম, কপার, লেড, টিন, জিংক ও জৈব এসিড (যেমন- ম্যালিক এসিড, সাইট্রিক এসিড, টারটারিক এসিড এবং অক্সালিক এসিড), কতিপয় ভিটামিন, প্রোটিন, হরমোনস, এসিটাইল কোলিন, অ্যান্টিবায়োটিকস, ফাইটোনসাইডস, সাইস্টোস্ট্যাটিক্স এবং পানি (১৯-২১%) ছাড়াও অন্যান্য পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। এছাড়াও, ভিটামিন সি বা অ্যাসকরবিক এসিড, ভিটামিন বি-১, বি-২, বি-৩, বি-৫, বি-৬, ভিটামিন-ই, ভিটামিন-কে, ভিটামিন-এ বা ক্যারোটিন ইত্যাদি বিদ্যমান। মধু এমন ধরনের ওষুধ, যার পচন নিবারক (অ্যান্টিসেপটিক), কোলেস্টেরলবিরোধী এবং ব্যাকটেরিয়াবিরোধী ধর্ম আছে। নিয়মিত ও পরিমিত মধু সেবন করলে উপকার পাওয়া যায়। এ কারণে করোনার পরিস্থিতিতে সুন্দরবনের মধুর কদর বেড়েছে। 

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মাদ বেলায়েত হোসেন জানান, গত ২৬ মার্চ গোটা সুন্দরবনে সব ধরনের পর্যটকসহ জেলে, বনজীবীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করে সর্বোচ্চ সর্তকতা ‘রেড এ্যালার্ট’ জারি করে বন অধিদপ্তর। এ সময় সুন্দরবন প্র্রাণ ফিরে পেয়েছে। মৌমাছির আবাসস্থলও বৃদ্ধি পেয়েছে। এ কারণে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সুন্দরবনে মধু আহরণ ও মোমের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। আশা করি এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

-এসএ/এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60; Online: 9513959 & 01552319639; Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft