For English Version
রবিবার ১৯ মে ২০২৪
হোম

সবুজ অরণ্যের রাতারগুল

Published : Tuesday, 14 May, 2024 at 12:25 PM Count : 524

নির্জন বন, পাখির কিচিরমিচির, সাদা বকের ওড়াওড়ি, সবুজের প্রশান্তি মানেই রাতারগুল। জলের ওপর বৃক্ষের বিস্তার বনের প্রধান বৈশিষ্ট্য। বনের ৮০ শতাংশ অংশ উদ্ভিদের আচ্ছাদনে আবৃত। এ বনে ৭৩ প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে। হিজল, বেত, কদম, করচ, মুর্তা, অর্জুন, ছাতিম, বট উল্লেখযোগ্য। এ বনে প্রতি বছর ভারী বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয় জুলাই মাসে।

বন বিভাগের তথ্যমতে, বনের আয়তন তিন হাজার ৩২৫ দশমিক ৬১ একর। ১৯৭৩ সালে বনের ৫০৪ একর বনভূমিকে বন্য প্রাণীর অভয়ারণ্য ঘোষণা করা হয়। স্থানীয়দের কাছে এটা ‘সুন্দরবন’ নামেই বেশি পরিচিত।

রাতারগুল সিলেটেগোয়াইনঘাটে অবস্থিত। জলে অর্ধেক ডুবে থাকা হাজারখানেক সবুজ উদ্ভিদ অতিক্রম করে ডিঙ্গি নৌকায় বনের গহীনে ভ্রমণ করতে পর্যটকেরা এখানে ভিড় জমান। নৌকায় ৪/৫ জন সহজেই বসা যায়, ভাড়া নেবে ৭০০-৮০০ টাকা।

জলে ডুবে থাকা এ বনে রয়েছে নানা প্রাণীর সমারোহ। সাপ, জোঁক, বেজি, গুইসাপ থেকে শুরু করে রয়েছে বক, মাছরাঙা, টিয়া, পানকৌড়ি, বুলবুলি, চিল, বালিহাঁস, শকুন, বাজপাখি। এছাড়া টেংরা, খলিসা, পাবদা ও কালবাউসসহ হরেক প্রজাতির মাছ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত এবং জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ বনটি পর্যটনের জন্য বেশ সম্ভবনাময়। ঘুরতে ঘুরতেই দেখা হয়ে যাবে জল আর জঙ্গলের মিশেলে গড়ে উঠা এক অসম্ভব রূপবতী জলারণ্যের সাথে।
স্থানীয়রা জানান, এখানে দেশ বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসেন। তারা সারা দিন ঘুড়ে বেড়ান বনের মধ্যে। তাছাড়া আশপাশে অনেক রিসোর্ট আছে। সেখানে পর্যটকরা থাকেন এবং এখানকার খাবার খেয়ে থাকেন।

নৌকার মাঝি রুবেল আহমেদ বলেন, আমি ২০০৮ সাল থেকে এখানে নৌকা চালাই। আমার স্ত্রী তিন ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে সংসার। সারা দিন নৌকা চালানোর পর ৬০০-৭০০ টাকা হাতে থাকে। সংসারও ভালো চলে।

তিনি বলেন, নৌকায় করে ঘোরার সময় পানিতে হাত না দেওয়া ভালো। এখানে বিভিন্ন ধরনের পোকামাকড় তো আছেই, বিষাক্ত সাপও পানিতে বা গাছে দেখতে পাওয়া যায় প্রায়। যারা সাঁতার জানেন না, সঙ্গে লাইফ জ্যাকেট রাখতে পারেন। তবে বনের পরিবেশ নষ্ট করবেন না। পলিথিন, বোতল, চিপস, বিস্কুটের প্যাকেট ইত্যাদি পানিতে ফেলবেন না। আমাদের নিজেদের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার দায়িত্ব আমাদেরই।

কিভাবে যাবেন
সিলেট শহরের খুব কাছেই এর অবস্থান। শহর থেকে গাড়িতে করে যেতে সময় লাগে ৩০-৪০ মিনিট। যাত্রাপথ আম্বরখানা, চৌকিদেখি হয়ে বিমানবন্দরকে পেছনে ফেলে হাতের ডান দিকের রাস্তা ধরে সাহেববাজারের দিকে। আম্বরখানার ইস্টার্ন প্লাজার সামনে থেকে লোকাল সিএনজি ভাড়া জনপ্রতি ৫০ টাকা। পথের দুই ধারে থাকা মালনীছড়া আর লাক্কাতুরা চা বাগানের সবুজ চোখে মেখে দ্রুতই পৌঁছে যাবেন গন্তব্যে। সিএনজি আপনাকে নামিয়ে দেবে একেবারে রাতারগুলের দ্বারপ্রান্তে মোটরঘাট নামক স্থানে। 

আর নিজস্ব পরিবহনে গেলে সাহেববাজারের কাছে গিয়ে স্থানীয়দের জিজ্ঞেস করলেই পেয়ে যাবেন রাতারগুল আর সেখানকার ফরেস্ট অফিসের খোঁজ। প্রশাসন নির্ধারিত জনপ্রতি ৭০ টাকা করে টিকিট কাটতে হয়। তারপর মোটরঘাট থেকে নৌকা ভাড়া করে রাতারগুল যেতে পারবেন।

-এমএ

« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone : PABX- 0241053001-08; Online: 41053014; Advertisemnet: 41053012
E-mail: info$dailyobserverbd.com, mailobserverbd$gmail.com, news$dailyobserverbd.com, advertisement$dailyobserverbd.com,   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft