For English Version
সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম জাতীয়

পাসের হার যথেষ্ট ভালো: প্রধানমন্ত্রী

Published : Wednesday, 17 July, 2019 at 12:19 PM Count : 80

ছবি: পিআইডি।

ছবি: পিআইডি।

উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার পাসের হার যথেষ্ট ভালো ও গ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ও ফলের পরিসংখ্যান হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর হাতে প্রতিটি বোর্ডের ফলাফল তুলে দেন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭৩ দশমিক ৯৩ ভাগ পাসের হার এটা ভালো। আমি মনে করি, আমরা শিক্ষার দিকে আরো মনোযোগ দিলে এ রেজাল্ট আরও ভালো হবে। আমরা প্রথমবার যখন ক্ষমতায় আসি তখন ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তুলি। বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নামটা আমি এই কারণেই দিয়েছিলাম যে, তখন আমরা দেখতাম যে, বিজ্ঞান পড়ার প্রতি ছেলেমেয়েদের আগ্রহ খুব কম ছিল।

তিনি বলেন, ‘আমরা এখন ৬০ দিনে ফলাফল দিতে পারছি। এবার ৫৫ দিনে এইচএসসির ফলাফল দিতে পারায় আমি খুব খুশি। এ জন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেকোনো দেশের উন্নয়নে সমাজের উন্নয়নে শিক্ষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। দেশকে উন্নত এবং দারিদ্র্যমুক্ত করতে হলে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্রদের চেয়ে ছাত্রীদের পাশের হার বেশি মনে হচ্ছে। লিঙ্গ সমতা যেন ঠিক থাকে সে জন্য সংশ্লিষ্টদের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলেন তিনি। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংবিধানে শিক্ষাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। তিনি মেয়েদের শিক্ষা অবৈতনিক করে দিয়েছিলেন। শিক্ষা ছাড়া একটি জাতি দারিদ্র্যমুক্ত হতে পারে না, সেটা তিনি উপলব্ধি করেছিলেন। বিজ্ঞানী ড. কুদরত-ই খুদাকে প্রধান করে শিক্ষা নীতিমালা প্রণয়নের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে ওই নীতিমালা জাতির পিতার কাছে তিনি হস্তান্তর করেছিলেন। কিন্তু জাতির পিতার হত্যার পর তা আর আলোর মুখ দেখেনি।’

তিনি বলেন, ‘পঁচাত্তরের পর ২১ বছর ব্যবধানে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে ওই শিক্ষা নীতিমালা খুঁজে বের করি ও নতুন করে আবার একটা কমিটি করে দিই একটা যুগোপযোগী শিক্ষা নীতিমালা প্রণয়ন করবার জন্য। আমাদের শিক্ষা নীতিমালাটাও প্রায় প্রণীত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, আমরা ২০০১ আর সরকারে আসতে পারিনি। সেই সময় আমাদের যেটা উদ্যোগ ছিল যে, সাক্ষরতার হার বাড়ানো, বিজ্ঞান শিক্ষা, প্রযুক্তি শিক্ষা এবং কারিগরি শিক্ষার ওপর আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলাম। তার ফলও জাতি পেতে শুরু করেছিল। ৪৫ ভাগ থেকে আমরা ৬৫ ভাগে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছিলাম। ইউনেস্কো আমাদের একটা পুরস্কারও দিয়েছিল।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এরপর আমরা আট বছর পরে সরকারে আসি, তখন আমরা দেখি আমাদের সাক্ষরতার হার কমে যায়। আর সেই শিক্ষা নীতিমালাটাও বাস্তবায়ন হয়নি। আবার আরেকটা কমিটি করা হয়, কিন্তু সেটা আর কার্যকর হয়নি। ২০০৯ সালে আবার যখন আমরা ক্ষমতায় আসি, তখন আবার একটা কমিটি করি এবং সেই শিক্ষা নীতিমালা আমরা প্রণয়ন করি এবং সর্বপ্রথম একটা শিক্ষা নীতিমালা আমরা গ্রহণ করি এবং তার বাস্তবায়ন আমরা করে যাচ্ছি।’

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft