For English Version
সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম রাজনীতি

দুই স্থানে প্রস্তুত এরশাদের কবর

Published : Tuesday, 16 July, 2019 at 3:17 PM Count : 109
অবজারভার প্রতিবেদক

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সমাহিত করতে দুই স্থানে কবর প্রস্তুত করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে বনানীর সামরিক কবরস্থানে তাকে দাফন করতে কবর প্রস্তুত করা হয়।

এদিকে, তাকে সমাহিত করতে রংপুরে পল্লী নিবাসের লিচু বাগানে কবর প্রস্তুত করা হয়েছে।

তবে জাতীয় পার্টির দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ বাদ আছর বনানীর সামরিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বনানী কবরস্থানের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিপুল সংখ্যক সেনা সদস্য ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কবরস্থানে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সামরিক কবরস্থানে কবর খনন কাজে দায়িত্বরত সিনিয়র অফিসার দেলোয়ার গণমাধ্যমকে বলেন, সকাল ৮টা থেকে ৩০ জন শ্রমিক নিয়ে আমরা কবর তৈরির কাজ শুরু করেছি। ইতোমধ্যে কবর খননের কাজ শেষ হয়েছে। তাঁকে (এরশাদ) দাফনের সময় সামরিক ও বেসামরিক উচ্চপর্যায়ের বিভিন্ন কর্মকর্তারা কবরস্থানে উপস্থিত থাকবেন। তাদের বসার জন্য ওপরে সামিয়ানা লাগিয়ে নিচে চেয়ার বসানো হচ্ছে।

দায়িত্বরত এক পুলিশ অফিসার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, 'আমরা নিজেরাও নিশ্চিত নই, লাশ এখানে আনা হবে কি না?'

বনানী রাস্তার পাশে ইতোমধ্যে জড়ো হতে শুরু করেছেন জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ।

জাতীয় পার্টির এক নেতা বলেন, 'এরশাদ সাহেবের কবরটি ছোট হয়ে গেছে। আর একটু বড় হলে ভালো হতো।'

লাশ দাফনের বিষয়ে তিনি বলেন, 'বনানী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে। রংপুর দেশের এক কোনায়। নেতাকর্মীরা সহজে ওইখানে গিয়ে তার কবর জিয়ারত করতে পারবে না।'

রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন বলেন, 'জানাজা শেষে স্যারের (এরশাদ) মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে পল্লী নিবাসে। সেখানে লিচুতলায় তাকে দাফন করা হবে।'

এর আগে বেলা পৌনে ১২টায় এরশাদের মরদেহ বহনকারী হেলিকপ্টার রংপুর সেনানিবাসে এসে পৌঁছায়। প্রিয় নেতাকে শেষবারের মতো দেখতে সকাল থেকেই জানাজা মাঠে উপস্থিত হতে থাকেন দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ। বিশৃঙ্খলা এড়াতে মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ। মরদেহ আসার পর পরই পুলিশি বেষ্টনী ভেঙে মরদেহের কাছে ছুটতে থাকেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

গত রোববার (১৪ জুলাই) ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর। তিনি রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন।

রংপুর-৩ (সদর) আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। তিনি এ আসন থেকে টানা ছয় বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

-আরইউ/এমএ



« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft