For English Version
সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম অনলাইন স্পেশাল

'রিকশা না চালালে বাঁচবো কিভাবে?'

Published : Tuesday, 9 July, 2019 at 4:14 PM Count : 96

রাজধানীর তিনটি সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধে সাধারণ মানুষসহ রিকশাচালকরা ভোগান্তি ও ক্ষতিগ্রস্তের স্বীকার হচ্ছেন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মঙ্গলবার সরেজমিনে রাজধানীর রামপুরা এলাকায় গিয়ে দেখে যায়, সকাল থেকে বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ সড়কে অবস্থান নিয়েছেন রিকশাচালকরা। রাস্তায় বসে যানবাহন চলাচলে বাধার সৃষ্টি করছেন। এসব সড়ক দিয়ে কোন প্রকার যানবাহন চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে না।

রংপুর থেকে ঢাকায় রিকশা চালাতে আসা আতোয়ার রহমান অবজারভার অনলাইনকে বলেন, 'গতকাল (সোমবার) রিকশা চালাতে পারিনি, আজও চালাতে যাইনি। আমার একার ইনকাম দিয়ে সংসারের সাতজন চলে। বাড়িতে সপ্তাহে পনেরশ টাকা কিস্তি দিতে হয়। এরপর আছে বাচ্চাদের পড়াশোনার খরচ। গতকাল গাড়ি চালাতে না যাওয়ায় ভাতের বিল, গ্যারেজ ভাড়া পাঁচশ টাকা হইছে। এখন আমরা যে খাব তার পয়সাটাও আামাদের কাছে নেই। আমরা যদি রিকশা না চালাই তাহলে বাঁচবো কিভাবে।'

শাহাবুদ্দিন নামের আরেক চালক অবজারভার অনলাইনকে বলেন, 'আমরা পকেট মারলে পাবলিক মারে, রিকশা নিয়ে বিশ্বরোডে গেলে পুলিশ ধরে। সড়কে উঠতে দেয় না। আমরা তাহলে খাব কি? সরকার অলিগলিতে রিকশা চালাতে বলছে। এই অলিগলিতে রিকশা চালিয়ে কি করবেন? এখানে কয়টা যাত্রী আছে? যাত্রী আছে মেইন রাস্তায়। সেই যাত্রীদের নিয়ে যদি আমরা মেইন রাস্তায় না যেতে পারি তাহলে না খেয়ে থাকতে হবে আামাদের। আমরা খেতে পারবো না, কিন্তু চিকন চাউলের ভাত খাবে মেয়রসহ আরও যারা রাজনৈতিক নেতারা।'

রিকশার গ্যারেজ মালিকরা বলছেন, সারা সিটি কর্পোরেশন এলাকায় রিকশা চালানোর অনুমতি না দেয়া হলে গ্যারেজ থেকে রিকশা বের করা হবে না। অলিগলি রিকশা চালিয়ে ভাড়া পাবে ২০ টাকা। এতে সারা দিনে আয় হবে একশ থেকে দেড়শ টাকা। এ টাকায় গাড়ির জমা খরচ দেবে কি আর চালক খাবে কি? আর অলিগলিতে এতো রিকশা চলবে কিভাবে?

এদিকে, দুই দিন সড়কে রিকশা চলাচল না করায় ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও পাচ্ছে না কাঙ্খিত গন্তব্যের রিকশা। বিশেষ করে অফিস ও স্কুলগামীদের ভোগান্তি বেড়েছে। 

নিয়মিত সকালে রিকশায় সন্তানকে স্কুলে নিয়ে যেতেন বাসাবো এলাকার নিলুফা আক্তার। দুদিন রিকশা না চলাচল করায় ভোগান্তিতে পড়েছেন তিনি। বলেন, 'বিকল্প কোন ব্যবস্থা না করে এভাবে হঠাৎ রিকশা তুলে দেবার সিদ্ধান্ত ঠিক নয়। রিকশায় চড়ে মানুষ তার নির্ধারিত গন্তব্যে যেতে পারে, যা অন্য যানবাহনে সম্ভব নয়।'

মতিঝিলে অফিস যাবার জন্য মালিবাগ মোড়ে দেড় ঘন্টা দাঁড়িয়ে ছিলেন ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল আজিজ। রিকশা না পেয়ে অবশেষে হেঁটেই রওনা দিয়েছেন।

শুধু আব্দুল আাজিজই নয় তার মত অনেকেই রিকশা না থাকায় হেঁটেই গন্তব্যে চলাচল করছেন। দ্রুত এ সমস্যার সমাধান চায় ভুক্তভোগীরা।

ঢাকা মহানগরীর কুড়িল বিশ্বরোড হয়ে রামপুরা, মালিবাগ, খিলগাঁও, বাসাবো, সায়দাবাদ পর্যন্ত, গাবতলী থেকে মিরপুর রোড হয়ে আজিমপুর পর্যন্ত এবং সাইন্সল্যাব থেকে শাহবাগ পর্যন্ত সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধের নির্দেশ দেবার পর থেকেই অবরোধে নামেন রিকশাচালকরা। তারা রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নিয়ে সড়কে রিকশা চলাচলের দাবিতে আন্দোলন করছেন।

-এমএ




« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft