For English Version
সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম শিক্ষা ও ক্যাম্পাস

বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে রাস্তা নির্মাণ চলছে

Published : Monday, 17 June, 2019 at 12:23 PM Count : 299

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পাতলাশী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে রাখা হয়েছে নির্মাণ সামগ্রী, চুল্লি নির্মাণ করে পোড়ানো হচ্ছে বিটুমিন। সৃষ্ট হচ্ছে উৎকট গন্ধ ও ধোঁয়া। এর ফলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত করে রাস্তার নির্মাণ কাজ করছে নির্মাণকারী এক প্রতিষ্ঠান।

জানা গেছে, উপজেলার বারইহাটি বাজার থেকে ত্রিমোহনী বাজার পর্যন্ত সড়কের কার্পেটিং কাজ শুরু হয়েছে। প্রায় ১ মাস আগে মাঠ জুরে ছোট ছোট স্তুপে পাথর, বালি, বিটুমিন রাখা হয়েছে। বিদ্যালয়টি ৯০ শতক জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত। কুরচাই ও পাতলাশী গ্রাম দুটির আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থী এ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পাঠ কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার কথা বিবেচনা করে বিশাল মাঠের অন্য জায়গায় নির্মাণ সামগ্রী রাখতে দেখিয়ে দেন। কিন্তু স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম আকন্দ ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে সেখানে নির্মাণ সামগ্রী রাখতে দেয়নি। বিদ্যালয় ভবনের পাশ ঘেষে শহীদ মিনারের সামনে নির্মাণ সামগ্রী বালু, পাথর, মেশিন, যানবাহন রাখতে দেয়। এর পাশেই তৈরি করে পিচ গলানো আগুনের চুলা। এই চুলা থেকে কালো ধোঁয়া ও মেশিন থেকে ধূলো উড়ে গিয়ে পুরো বিদ্যালয় ভবন এলাকা আচ্ছন্ন হয়ে গেছে। এতে শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়ে কেউ কেউ বিদ্যালয় ছেড়ে বাড়িতে চলে যাচ্ছে। ঠিকাদারের নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত যানবাহনে তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী কুরচাই গ্রামের রাসেল মিয়ার ছেলে রাকিব হাসান গুরুতর আহত হন। পড়ালেখায় দারুণ বিঘ্ন ঘটছে বলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঠিকাদার বিদ্যালয় মাঠে বালু, পাথর ও খোয়া মেশানোর মিশ্রণযন্ত্র এবং পিচ গলানোর জন্য চুলা স্থাপন করেছে। বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। কোমলমতি শিশুরা ছোটাছুটি করতে পারছে না। পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। শিশুদের খেলার মাঠ নেই। তারা শ্রেণিকক্ষ থেকে বেরোতে পারছে না। কতৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেছি।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানায়, আগুনের কালো ধোঁয়া ও ধূলায় চোখ দিয়ে পানি পড়ে। শ্রেণীকক্ষে বসলে বই-খাতায় ধূলোর স্তর পড়ে যায়।

ঠিকাদার আসাদ বলেন, রাস্তা মেরামতের মালামাল রাখার জায়গা না পেয়ে বিদ্যালয়ের মাঠ ব্যবহার করছি। দ্রুত এগুলো সরিয়ে নেয়া হবে।

গফরগাঁও উপজেলা প্রকৌশল অফিস জানায়, ‘ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মালামাল কোথায় রেখে রাস্তা মেরামত করবে এ বিষয়ে আমাদের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। শুধু সঠিকভাবে কাজটা বুঝে নেওয়াই আমাদের দায়িত্ব।’

গফরগাঁও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কাজী মাহবুব উর রহমান বলেন, ‘বিদ্যালয় মাঠে ঠিকাদারি মালামাল রাখার বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft