For English Version
সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম আইন-আদালত

জামিন নিতে এসে গ্রেফতার ওসি মোয়াজ্জেম

Published : Sunday, 16 June, 2019 at 8:36 PM Count : 83
অবজারভার প্রতিবেদক

তথ্য প্রযুক্তি আইনের মামলায় ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতার করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ।  গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির ২০ দিন পর রোববার রাজধানীর শাহবাগ থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।  

এর আগে, পুলিশ সদরদপ্তরের জনসংযোগ বিভাগের এআইজি সোহেল রানা তার গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

সোহেল রানা জানান, মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে আদালতে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

এদিকে বিকেলে ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার মো. মারুফ হোসেন সরদার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘ওসি মোয়াজ্জেমকে শাহবাগের কদম ফোয়ারা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোনাগাজী থানায় তার নামে ওয়ারেন্ট আছে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। সেখান থেকে তাদের প্রতিনিধি আসবে।  তারা আসলে তাদের কাছেই ওসি মোয়াজ্জেমকে হস্তান্তর করা হবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি বলেন, ‘তারা (সোনাগাজী থানা পুলিশ) রওনা দিয়েছে, আসলেই হস্তান্তর করা হবে।  যতক্ষণ হস্তান্তর করা হবে না, ততক্ষণ পর্যন্ত শাহবাগ থানাতেই থাকবেন ওসি মোয়াজ্জেম।’ 

তাকে কোন আদালতে নেওয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেহেতু ওয়ারেন্টটা তাদের (সোনাগাজী থানা) কাছে, কাজেই তারাই সিদ্ধান্ত নেবে যে কোন আদালতে হাজির করা হবে।’

তিনি ওয়ারেন্ট জারির পর এই ২০ দিন কোথায় পলাতক ছিলেন, কেনো তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি? সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি মারুফ হোসেন আরো বলেন, এটা বলা যাবে না।  কারণ কেউ গ্রেফতারের পর বলবে না যে, সে কোথায় ছিল।

ওসি মোয়াজ্জেম সকালে আদালতে জামিনের জন্য গিয়েছিলেন, সেখান থেকে ফেরার সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিষয়টি সত্য কিনা? এ বিষয়ে তিনি বলেন, এটা তার ব্যক্তিগত বিষয়, তিনি কোথাও গিয়েছিলেন কিনা। আমাদের কাছে আসা গোপন তথ্য অনুযায়ী আমরা কদম ফোয়ারা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করি।

জিজ্ঞাসাবাদে তিনি কি বলেছেন? উত্তরে মারুফ হোসেন বলেন, আমাদের এই থানায় তার নামে কোনো মামলা নেই। তাই আমাদের জিজ্ঞাসাবাদ করার কোনো কারণ নেই। তারপরেও আমরা মাত্র কিছুক্ষণ আগেই ধরেছি, এখনো কথা বলার সময় পাইনি।

এদিকে ওসি মোয়াজ্জেমের আইনজীবী সালমা সুলতানা জানান, আজ হাইকোর্টে তার আগাম জামিন আবেদন উপস্থাপন করা হয়েছিলো। আদালত আগামীকাল কজলিস্টে থাকবে বলে আদেশ দেন। এখন আপনারা তো জানেন তিনি গ্রেফতার হয়েছেন। তাই আগামীকালতো আগাম জামিন আবেদন শুনানির সুযোগ নেই।

গত ৬ এপ্রিল এইচএসসি সমমানের আলিম আরবি প্রথমপত্রের পরীক্ষা দিতে গেলে দুর্বৃত্তরা নুসরাত জাহান রাফিকে ছাদে ডেকে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে গত ১০ এপ্রিল নুসরাত মারা যান।

এর কিছুদিন আগে নুসরাত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ জানাতে সোনাগাজী থানায় যান। থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সে সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। ওই ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে মামলা হলে আদালতের নির্দেশে সেটি তদন্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পিবিআই গত ২৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে ওই দিনই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। এরপর থেকে পলাতক ছিলেন মোয়াজ্জেম। তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছিল না পুলিশের, এমনকি তিনি আত্মসমর্পণও করেননি।

পরে গত ৮ মে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়। মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে তিনি রংপুর রেঞ্জ অফিসে যোগ দেন। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হওয়ার পর তিনি সেখান থেকে নিরুদ্দেশ হন।

এইচএস


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft