For English Version
রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯
হোম তথ্য-যোগাযোগ

মোবাইল অ্যাপে রাজশাহীর আম

Published : Sunday, 9 June, 2019 at 8:03 PM Count : 287

রাজশাহীর আমের অ্যাপভিত্তিক বিক্রয় সেবা চালু হয়েছে। এর মাধ্যমে শুধু রাজশাহীর আম সরবরাহ করা হবে। সেই সঙ্গে নিশ্চয়তা থাকবে ঘরে বসে রাসায়নিকমুক্ত আম পাওয়ার। প্রবাসীরাও এই অ্যাপের মাধ্যমে দেশে তাদের স্বজনদের কাছে রাজশাহীর আম পৌঁছে দেওয়ার সুবিধা পাচ্ছেন।

অ্যাপভিত্তিক আম বিক্রয় সেবার উদ্যোক্তা হাসান তানভীর ২০১৩ সালে তাঁর নিজের বাগানের আম ফেসবুক পেজের মাধ্যমে সারাদেশে সরবরাহ শুরু করেন। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সেবাকে আরও সহজ করার জন্য তিনি এবার মোবাইল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ চালু করেছেন। অনানুষ্ঠানিকভাবে দুই সপ্তাহ ধরে এই সেবা চলছে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক গত ৩০ মে তার কার্যালয়ে এর উদ্বোধন করেন। তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশে রাজশাহীর আমকে সারাদেশের ক্রেতাদের হাতে সহজ উপায়ে পৌঁছে দেওয়ার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান।

উদ্যোক্তা হাসান তানভীর বলেন, অ্যাপটি যেকোনো স্মার্টফোনে ব্যবহার করা যাবে। গুগল প্লে স্টোর থেকে বিনামূল্যে ‘রাজশাহীর আম’ নামের অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে। এরপর নিজের তথ্য দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। এরপরই আগ্রহী ক্রেতা পৌঁছে যাবেন রাজশাহীর আমের ভুবনে। সেখানে আম সম্পর্কিত ব্লগে আমের বিস্তারিত তথ্য দেওয়া আছে। মৌসুমের কোন সময় কোন আম পাকছে এ তথ্য যেমন রয়েছে, আরও রয়েছে আমবাগান করা, আমের পরিচর্যা ও আম সংরক্ষণের যাবতীয় তথ্যও।

এছাড়া দেখা যাবে, আমের ছবি, বর্তমান দাম এবং যাঁরা আগে এই অ্যাপ থেকে আম কিনেছেন তাঁদের মতামত। দেখে শুনে প্রয়োজনমতো আমের পরিমাণ নির্ধারণ করে পেমেন্ট অপশনে যেতে হবে। মূল্য পরিশোধ করার জন্য মোবাইল ব্যাংকিং, সরাসরি ব্যাংক পেমেন্টের পাশাপাশি প্রবাসীরা ব্যবহার করতে পারবেন ‘ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন মানি ট্রান্সফার’ পদ্ধতি। কোনো ক্রেতার আরও কিছু জানার থাকলে এই অ্যাপের কল অপশন ব্যবহার করে বিক্রেতার সঙ্গে সরাসরি কথাও বলে নিতে পারবেন।

তবে চাইলেই যেকোনো সময়ে যেকোনো আম সরবরাহ করা হবে না। আম পাকার সময়সূচি অনুযায়ী মিলবে পছন্দের আম। এতে করে যে আমটি পরে পাকবে, সেটি এই অ্যাপের মাধ্যমে কোনোভাবেই আগে পাওয়ার সুযোগ নেই। প্রাকৃতিকভাবে আম পাকার স্বার্থেই উদ্যোক্তা এই নিয়ম অনুসরণ করছেন।

ফেসবুক থেকে অ্যাপে আসার কারণ জানতে চাইলে হাসান তানভীর বলেন, তার ফেসবুক পেজে এখন প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার অনুসারী। ক্রেতাদের সেখানে এত চাপ যে তাঁদের পক্ষে ক্রেতাদের সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। ফোন কলের মাধ্যমে ফরমাশ নিতেই অনেক বেগ পেতে হচ্ছে। আবার অনেক ক্রেতা মুঠোফোনে কথা বলে সময় নষ্ট করতেও চান না। তারা অ্যাপে ঢুকে দেখে শুনে অর্ডার নিশ্চিত করতে পছন্দ করেন। এছাড়া ফেসবুকে এখন রাজশাহীর আম নামে একাধিক পেইজ তৈরি হয়ে গেছে। এই ভিড়ে নিজেদের স্বকীয়তা বজায় রাখতে অ্যাপের আশ্রয় নিতে হয়েছে। এখানে কোনো ক্রেতার প্রতারিত হওয়ার সুযোগ নেই।

রাসায়নিকমুক্ত আম কীভাবে নিশ্চিত করবেন, তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাজশাহীর বাঘায় তার নিজের ও ইজারা নেওয়া বাগান আছে। স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে তিনি আমের পরিচর্যা করেছেন। এই বাগান ছাড়া বাইরে থেকে কিনে তিনি সরবরাহ করেন না। এ জন্য তিনি নিশ্চয়তা দিতে পারেন যে তার আম রাসায়নিকমুক্ত। আম শেষ হলেই তিনি অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দেন।





সুমি খাতুন নামের ঢাকার একজন ক্রেতা অ্যাপে হিমসাগর আমের ছবির নিচে লিখেছেন, ‘আমার জন্য হিমসাগর প্রথম বুকিং রাখবেন। কারণ, গত বছর বুঝেছি হিমসাগরের ওপরে আর কোনো আম নেই। গত বছর আপনাদের কাছ থেকে অনেক আম নিয়েছি। এবারও নেব। আর এবার অ্যাপ চালু করে ভালো করেছেন।’

-আরএইচএফ/এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft