For English Version
মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯
হোম Don't Miss

অলৌকিকভাবে দাঁড়িয়ে গেলো ঝড়ে উপরে পরা বটগাছ

Published : Sunday, 9 June, 2019 at 7:32 PM Count : 165

নওগাঁর রাণীনগরে ঝড়ে উপরে পরা একটি বটগাছ অলৌকিকভাবে দাঁড়িয়ে গেছে। বটগাছটি কাটার সময় দিনের বেলায় এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে রাণীনগর উপজেলার একডালা ইউনিয়নের যাত্রাপুর গ্রামে।

ঘটনার পর থেকে প্রতিদিনই উৎসুক জনতা গাছটি এক নজর দেখার জন্য ছুটে আসছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের মৃত যদু প্রামানিক ছোট বেলা থেকেই জ্বিন বা মাদারের প্রতি আসক্ত ছিলেন। মাঝে মধ্যেই তার ওপর জ্বিন ভর করতো। প্রায় অর্ধশত বছর আগে জ্বিনে ভর করা অবস্থায় যদু প্রামানিক ছোট একটি বট গাছ রোপণ করেন। ধীরে ধীরে বড় হতে থাকলে মাদারের গাছ হিসেবে পরিচিতি পায় বটগাছটি। জ্বিন বা মাদারের স্বরণে প্রতি বছর সেখানে মাদারের পালাগানের আসরও বসে। এছাড়া দূর দূরান্তরের লোকজন নানা রোগবালাইয়ে আক্রান্ত ব্যধি দূর করতে ওই গাছে মানত করতো।

অনেকের দাবি, এই গাছে মানত করে অনেক লোকজন রোগ থেকে মুক্তিও পেয়েছে। গত মাসে সারাদেশে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে গাছটি পাশে থাকা একটি পাকা ভবনের ওপর উপরে পরে। এতে ওই ভবনের কিছু অংশের ক্ষতিও হয়েছে। কিন্তু গাছটি উপরে পরলেও মাদারের ভয়ে কেউ ডালপালা কাটতে সাহস পায়নি। এতে মাসখানেক ধরে গাছটি ওই অবস্থায় পরে থাকে। এরপর রোজার মাত্র একদিন আগে গাছের ডালপালা কাটতে লেবার আনা হয়। গাছের মাথার অংশ কাটার সময় হঠাৎ করেই গাছটি অবিশ্বাস্য ভাবে পূর্বের ন্যায় দাঁড়িয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছাদের উপর পরে থাকা গাছের অংশের ওপর একজন লেবার বদনা হাতে দাঁড়িয়ে কাজ করছিল। এ অবস্থায়ই গাছটি দাঁড়িয়ে যায়। পরে লোকটি গাছ থেকে নেমে আসেন। এতে তার কোনো ক্ষতি হয়নি। ঘটনা জানাজানি হলে প্রতিদিনই উৎসক জনতা ছুটে আসছেন গাছটি এক নজর দেখার জন্য। তবে অনেকে মনে করছেন, ডালপালার কারণে মাথার অংশ অনেক ভারী ছিল। সেগুলো কেটে দিলে গোরার অংশ ভারী হওয়ায় গাছটি হয়তো দাঁড়িয়ে গেছে। তবে একেবারে পূর্বের ন্যায় অবিকল দাঁড়িয়ে যাওয়া, গাছের শিকড়, গোড়ালি মিলে যাওয়াটাও অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন তারা।

গাছের পাশের বাড়ির বাসিন্দা সুফিয়া বেওয়া জানান, বিয়ের পর থেকে তিনি এই গাছ দেখছেন। গাছের পাশে তাদের বাড়ির টয়লেট। রাত-বিরাতে সেখানে চলাচল করলেও কোন আলামত দেখতে পাননি তারা। তবে সেখানে লোকজন মানত করতো। প্রতি বছর মাদারের পালাগান বসে বলেও জানান তিনি।

ওই গ্রামের বৃদ্ধ হেকমত আলী জানান, গাছটি অবিকল দাঁড়িয়ে যাওয়াটা একদম অস্বাভাবিক ও অলৌকিক।

গাছের তদারকিকারী ও মাদারের পালাগানের আয়োজক সুরজান বেওয়া ও পুটি বেওয়া জানান, ওই গাছে মাদার বাস করে। প্রতি বছরই গাছের নিচে মাদার স্বরণে পালা গান করতে হয়। না করলে অনেক সমস্যা হয়। তারা যুক্তি দিয়ে বলেন, একশ জন লোক এসে গাছটি খাড়া করতে পারবেনা। যদিও পারে তাহলে অবিকল দাঁড়িয়ে রাখার ক্ষমতা নেই। তাদের পূর্ণ বিশ্বাস, গাছটি মাদারই দাঁড় করে রেখেছে।

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft