For English Version
মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯
হোম জাতীয়

উৎপাদনে ফিরেছে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলো

Published : Wednesday, 22 May, 2019 at 10:37 AM Count : 69

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ধর্মঘট স্থগিত করে কাজে যোগ দিয়েছেন খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা। তিন শর্তে বুধবার ভোর ৬টা থেকে তারা কাজে যোগ দেন।

মঙ্গলবার খুলনার জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেনের সঙ্গে বৈঠকের পর রাতে শ্রমিক নেতারা আলোচনার মাধ্যমে এ সিদ্ধান্ত নেন।

বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগের খুলনা-যশোর আঞ্চলিক কমিটির আহ্বায়ক মো. মুরাদ হোসেন বলেন, ‘পাটকলগুলোতে যেসব শ্রমিক জরুরি কাজে কর্মরত রয়েছেন তাদের ২২ মে মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন, চলতি সপ্তাহের মধ্যে বকেয়া দুই সপ্তাহের মজুরি প্রদান এবং আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বকেয়া সব মজুরি প্রদানের শর্তে এক সপ্তাহের এ আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।’

খুলনা জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেন বলেন, ‘শ্রমিকদের বকেয়া প্রায় ৬০ কোটি টাকা সরাসরি তাদের ব্যাংক একাউন্টে চলে আসবে।’

প্লাটিনাম জুট মিল সিবিএ সভাপতি শাহানা শারমিন জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে প্লাটিনাম জুট মিলের শ্রমিকরা কাজে যোগ দিয়েছেন। অন্য মিলগুলোতে বুধবার ভোর ৬টা থেকে শ্রমিকরা কাজে যোগ দেন।

পাটখাতে প্রয়াজনীয় অর্থ বরাদ্দ, বকেয়া মজুরি-বেতন পরিশোধ, জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশনের রোয়েদাদ ২০১৫ কার্যকর, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের পিএফ ও গ্র্যাচুইটির অর্থ পরিশাধ, চাকরিচ্যুত শ্রমিক-কর্মচারীদের পুনর্বহাল, সব মিল সটআপের অনুকূল শ্রমিক-কর্মচারীদের শূন্য পদের বিপরীতে নিয়োগ ও স্থায়ীকরণসহ ৯ দফা দাবিতে শ্রমিকরা ১৩ মার্চ থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসছিল।

গত ৫ মে রাত থেকে পাটকল শ্রমিকরা কর্মবিরতি শুরু করেন। খুলনার প্লাটিনাম জুবলী জুট মিলস, স্টার জুট মিলস, দৌলতপুর জুট মিলস, খালিশপুর জুট মিলস, আলিম জুট মিলস, ইস্টার্ন জুট মিলস, ক্রিসেন্ট জুট মিলস এবং যশোরের জেজেআই জুট ও কার্পেটিং মিলস শ্রমিকরা এই কর্মবিরতিতে অংশ নেন।

বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগ এবং সিবিএ ও নন-সিবিএ পরিষদ যৌথভাবে ১২ দফা দাবিতে এই ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল। এই দাবিতে শ্রমিকরা এপ্রিল মাসে দুই দফা ধর্মঘট পালন করেন এবং নির্দিষ্ট সময়ের জন্য রেল ও রাজপথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান।

শ্রমিক নেতারা জানান, খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, স্টার, আলিম, ইস্টার্ন এবং যশোরের কার্পেটিং ও জেজেআই জুট মিলে বর্তমানে ১৩ হাজার ২৭১ শ্রমিক কাজ করছেন। মজুরি বকেয়া থাকায় শ্রমিকরা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন।

শ্রমিকদের ঘোষিত দাবির মধ্যে রয়েছে, সরকার ঘোষিত জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন-২০১৫ সুপারিশ বাস্তবায়ন, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের পিএফ গ্র্যাচুইটি ও মৃত শ্রমিকের বিমার বকেয়া টাকা প্রদান, টার্মিনেশন ও বরখাস্ত শ্রমিকদের কাজে পুনর্বহাল, শ্রমিক-কর্মচারীদের নিয়োগ ও স্থায়ীকরণ, পাট মৌসুমে পাট ক্রয়ের অর্থ বরাদ্দ, উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে মিলগুলোকে পর্যায়ক্রমে বিএমআরই করা।

বিজেএমসির অধীনে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা জোনে মোট ২৬টি পাটকল রয়েছে। তার মধ্যে চট্টগ্রাম জোনে রয়েছে আমিন জুট মিলস লিমিটেড ও ওল্ড ফিল্ডস লিমিটেড, গুল আহমেদ জুট মিলস লিমিটেড, হাফিজ জুট মিলস লিমিটেড, এমএম জুট মিলস লিমিটেড, আরআর জুট মিলস লিমিটেড, বাগদাদ-ঢাকা কার্পেট ফ্যাক্টরি লিমিটেড, কর্ণফুলী জুট মিলস লিমিটেড, ফোরাত কর্ণফুলী কার্পেট ফ্যাক্টরি, গালফ্রা হাবিব লিমিটেড ও মিলস ফার্নিসিং লিমিটেড। অন্যদিকে খুলনায় রয়েছে ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, স্টার, ইস্টার্ন, আলিম এবং যশোরের জেজেআই ও কার্পেটিং জুট মিল।

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft