For English Version
শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯
হোম সারাদেশ

চোখের জলে ভাসলো ওদের মা দিবস

Published : Sunday, 12 May, 2019 at 10:40 PM Count : 184

স্কুলের গন্ডি পার না হতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে হয়। স্বামীকে হারিয়েছেন এক যুগ আগে তখন দুই মাসের গর্ভে ছিল ছোট মেয়ে আর বড় মেয়ের বয়স ৫ বছর। মা দিবসে কথা হয় হাসপাতালে ভর্তি নীলগঞ্জ ইউনিয়নের নিজকাটা গ্রামে আপন দেবরের হাতে অমানবিক নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ বাসন্তী রানীর সঙ্গে।

রবিবার দুপুরে মা বাসন্তী রানীর দশম শ্রেণীতে পডুয়া মেয়ে স্বর্ণা এখন দিনরাত পার করছে হাসপাতালে অসুস্থ্য মায়ের পাশে। গত চারদিন ধরে বই নিয়ে বসা হয়নি তার। আপন কাকা সমির হাওলাদারের নির্মম নির্যাতন ও মারধরের অসহ্য ব্যথার যন্ত্রণায় মা যখন ছটফট করেন তখন মায়ের মাথার পাশে বসে শান্তনা দেয় সে। মা ও বোনের এ দৃশ্য দেখে তখন অঝড়ে কাঁদতে থাকে অসহায় ছোট মেয়ে সমাপ্তি।

মা দিবসে সকল ছেলে-মেয়েরা যখন মায়ের সাথে হাসি, আনন্দে সময় কাটাচ্ছে তখন পিতৃহীন ওই দুইবোন হাসপাতালের গ্রিল ধরে লুকিয়ে চোখের জল ফেলছে। হয়তো সৃষ্টিকর্তার কাছেই বিচার চাইছে তারা। নিজের ভবিষ্যত চিন্তা না করে কখনও রাস্তার মাটি কেটে, হোগলা বুনে দুই মেয়েকে লেখাপড়া করাচ্ছেন বাসন্তী। দুই মেয়ের উজ্জল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখে বিসর্জন দিয়েছেন নিজের ভবিষ্যত। বড় মেয়ে স্বর্ণা এখন পাখিমারা প্রফুল্ল
ভৌমিক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দমশ শ্রেণিতে এবং ছোট মেয়ে সমাপ্তি নিজকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ছে।

বাসন্তী রানী জানান, তাদের আতঙ্ক এখন দেবর সমির হাওলাদার। স্বামীর রেখে যাওয়া ভিটা দখলে নিতে একেরপর এক চক্রান্তের পর এবার তাদের ঘর থেকে বের করে দিয়ে দরজায় তালা ঝুলিয়ে উঠানে ফেলে মধ্যযুগীয় নির্যাতন করে তার উপর। রডের আঘাতে মাথায় প্রায় তিন ইঞ্চি ফেঁটে গেছে। মাথা থেকে প্রচুর রক্তপাত হলেও থামেনি তার নির্যাতন। দুই মেয়ে মায়ের উপর নির্যাতন করতে দেখে কাকাকে বাঁধা দিলেও
তাঁদেরও মারধর করে সমির। 

গত ৮ মে বিকালে ওই নির্মম নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে প্রতিবেশী নারীদের উপরও হামলা চালায় সমির হাওলাদার। এ হামলার খবর এলাকায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে গ্রামবাসী এক জোট হয়ে এগিয়ে আসলে সমির পালিয়ে যায়। রাতেই মা, দুই মেয়ে ও এক প্রতিবেশীকে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় ৯ মে কলাপাড়া উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেবর সমির ও জা পুতুল রানীর নামে মামলা দায়ের করেন বাসন্তী রানী। বিজ্ঞ আদালত কলাপাড়া থানার ওসিকে মামলাটি এজাহার হিসেবে নেয়ার নির্দেশ দেন।

স্বর্ণা জানায়, মায়ের উপর নির্মম নির্যাতনের দৃশ্য এখনও ভুলতে পারেনি সে। মায়ের মাথা থেকে যখন অঝোরে রক্ত বের হচ্ছিল তখনও কিল ঘুষি ও লাঠি দিয়ে মারছিল কাকা। গায়ের ওড়না দিয়ে মায়ের মাথা বাঁধতে গেলে তাকেও মারধর করে। আজ সব বন্ধুরা মাকে নিয়ে ঘুরতে বের হবে, ঘরে কতো ভালো মন্দ রান্না হবে। কিন্তু মা যন্ত্রণায় ছটফট করছে। মায়ের চোখের জল আমাদের দুই বোনকে ভুলিয়ে দিয়েছে এ দিবসের কথা। বাবার মুখটা মনে নেই আমার। ছোট বোনতো বাবাকে দেখেনি। মায়ের ঘামে ভেঁজা কষ্টের টাকায় তারা দু’মুঠো ভাত খেয়ে লেখাপড়া করছে। কিন্তু আজ যদি মায়ের কিছু হয়ে যায় তখন কে দেখবে তাদের। যারা মাকে মেরেছে তাদের কী শাস্তি হবে না? এ প্রশ্ন করে কেঁদে ফেলে তারা। ওই দুই বোনের চোখের জল ও আর্তনাদ দেখে হাসপাতালে অন্য রোগীর স্বজনরাও চোখের জল ধরে রাখতে পারেনি।

এইচএস


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft