For English Version
সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হোম সারাদেশ

ঝুঁকিপূর্ণ কক্ষে আবাদপুকুর দাখিল মাদ্রাসায় পাঠদান

Published : Monday, 1 April, 2019 at 2:28 PM Count : 155

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার বর্তমান সময়ে বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে পরিচিত পূর্বা অঞ্চল আবাদপুকুর । এক সময় এই অঞ্চলটি ছিলো দূর্গম ও চরম অবহেলিত। এই অঞ্চলের গরীব ও ঝড়েপড়া সন্তানদের ইসলামী শিক্ষায় দীক্ষিত করার লক্ষ্যে ২০০৪ সালে ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করা হয় আবাদপুকুর দাখিল মাদ্রাসা। এরপর মাদ্রাসাটি ২০১১ সালে শুধুমাত্র একাডেমিক স্বীকৃতি পায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত মাদ্রাসাটিতে অবকাঠামোগত উন্নয়সহ কোন কিছুরই ছোঁয়া লাগেনি।

প্রতিষ্ঠার এক দশকের বেশি সময় পার হলেও এখনো মাদ্রাসাটিতে আধুনিকতার কোন ছোঁয়াই স্পর্শ করেনি। সরকার যেখানে অবহেলিত (মাদ্রাসা শিক্ষা) ইসলামী শিক্ষার প্রসার ঘটানো ও ইসলাম শিক্ষার প্রতি আগ্রহী করার লক্ষ্যে দেশের ইসলামী প্রতিষ্ঠান মাদ্রাসাগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন থেকে শুরু করে সার্বিক উন্নয়নের জন্য নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ ও তা বাস্তাবায়ন করে যাচ্ছেন, অথচ মফস্বল এলাকার এই ইসলামী বিদ্যাপিঠটি এখনো অবহেলিত ও অনেক পিছিয়ে রয়েছে। মাদ্রাসাটিতে কক্ষ সংকটের কারণে ঝুঁকি নিয়ে পরিত্যক্ত একাধিক ঝুঁকিপূর্ণ কক্ষে গাদাগাদি করে পাঠগ্রহণ করছে শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও কোন নিরাপত্তা প্রাচীর না থাকায় মাদ্রাসার সব কিছুই থাকে নিরাপত্তাহীনতায়। একাধিকবার চুরি হয়ে গেছে পানি তোলার মেশিন। গাছের নীচে ইটের পুরাতন কক্ষের প্রাচীর কোথাও ভেঙ্গে গেছে আবার টিনের ছাউনির কোথাও টিন উড়ে ফাঁকা হয়ে গেছে আর দীর্ঘ দিনের পুরাতন টিনগুলোতে রয়েছে অসংখ্য ফুটো। যার কারণে বর্ষা মৌসুমে টিনের ছাউনির কক্ষগুলোতে পাঠদান করানো সম্ভব হয়ে ওঠে না। টিনের ফুটো দিয়ে কক্ষগুলোতে বৃষ্টির পানি পড়ে। বর্ষা মৌসুমের অধিকাংশ সময় ঝুঁকিপূর্ণ বারান্দায় কিংবা গাছের নিচে অথবা মাদ্রাসা ছুটি দিতে বাধ্য হন কর্তৃপক্ষ।

পরিত্যক্ত এই ভবনগুলো যেকোনো সময় ভেঙ্গে পড়ে দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা প্রকাশ করছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মহল। পর্যাপ্ত শ্রেণি কক্ষ না থাকার কারণে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ পরিত্যক্ত কক্ষেই পাঠদান করাতে বাধ্য হচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট বিভাগকে বার বার অবগত করেও কোন কাজ হয়নি বলে জানান শিক্ষক ও মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি। 

মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল বারী জানান, সরকারের নীতিমালা অনুসারে দেশের প্রতিটি উপজেলায় ইসলামী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠান থাকার কথা রয়েছে ১৮টি করে অথচ আমাদের উপজেলায় রয়েছে মাত্র ৬টি দাখিল মাদ্রাসা। তারপরও আমাদের এই ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনো মেলেনি সরকারি ভাবে কোন উন্নয়নের ছোঁয়া। বেহাল দশায় পড়ে আছে এই ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। কারো নজর নেই মাদ্রাসাটির দিকে। আমাদের ভাগ্যে মিলেনি আধুনিক মানের কোন সরকারি ভবন ও সুযোগ-সুবিধার। এই মাদ্রাসার বর্তমান যা রয়েছে তা সবই দাতা ব্যক্তি ও আমাদের দ্বারা সৃষ্টি। মাদ্রাসাটি স্থাপনের সময় দাতা ব্যক্তি ও শিক্ষকদের ব্যক্তিগত অর্থায়নে টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি করা হয় ৮টি কক্ষ ও দুই বছর আগে সেকায়েপ থেকে প্রদানকৃত অর্থ দিয়ে তৈরি করা হয় আরও ২টি কক্ষ। কিন্তু ৮টি কক্ষের টিনগুলো দীর্ঘ দিনের পুরাতন হওয়ায় কালবৈশাখী ঝড়ে একাধিকবার উড়ে যাওয়ায় ও মরিচা ধরে ফুটো হওয়ার কারণে বর্ষা মৌসুমে কক্ষের ভেতরে পাঠদান করানো সম্ভব হয় না। মাদ্রাসায় আমরা ইসলামী বিভাগের ১ম শ্রেণি থেকে দাখিল (এসএসসি) পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে আসছি। মাদ্রাসাটিতে বর্তমানে এলাকার অসহায়, গরীব ও খেটে-খাওয়া পরিবারের প্রায় ৩ শতাধিক ছেলে-মেয়েরা ইসলাম শিক্ষা গ্রহণ করছে। মাদ্রাসাটি অনেকটা স্বেচ্ছাশ্রম ভিত্তিক ইসলাম শিক্ষা ছড়িয়ে দিয়ে আসছে এই অঞ্চলের সন্তানদের মধ্যে। মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত ফলাফলে শতভাগ পাশ এবং মেধাবী শিক্ষার্থীরা বৃত্তি পেয়ে আসছে। 

তিনি আরও বলেন, অবহেলিত এই অঞ্চলে অনেক বছর যাবত ইসলাম শিক্ষার জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিয়ে আসলেও এখনোও এই ইসলামী বিদ্যাপিঠটিতে আধুনিকতার কোন ছোঁয়া লাগেনি। বর্তমানে এই বিদ্যাপিঠ নানা সমস্যায় জর্জড়িত। সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বড় বাধা হয়ে দাড়িয়েছে কক্ষ সংকট। বাধ্য হয়ে পরিত্যক্ত কক্ষে ও কক্ষের বারান্দায় গাদাগাদি করে পাঠদান কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। প্রধান শিক্ষক ও সাধারণ শিক্ষকদের জন্য নেই আলাদা কক্ষ। প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে মাদ্রাসা কক্ষে পাঠগ্রহণ করতে বাধ্য হচ্ছে। এছাড়াও ঝড়ের মৌসুমে আমরা থাকি চরম নিরাপত্তাহীনতায়। কারণ কখন ঝড় এসে কক্ষের টিনের ছাউনি উড়িয়ে নিয়ে যাবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। ঝড়ে কক্ষের টিনগুলো উড়ে যাওয়ায় বার বার বিপাকে পড়তে হয়। মাদ্রাসার এহেন অবস্থা দেখে অনেক পরিবারই তার সন্তানকে মাদ্রাসায় আসতে দেয় না। আমরা শিক্ষকরা রয়েছি চরম বিপাকে।  

মাদ্রাসার শিক্ষার্থী খাদেমুল ইসলাম, নাজমিন আক্তারসহ অনেকেই জানায়, আমরা এই মাদ্রাসার অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা গরীব, অসহায় ও খেটে খাওয়া পরিবারের সন্তান। অনেক টাকা খরচ করে নামীদামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ানোর মতো সামর্থ আমাদের পরিবারের নেই। তাই আমরা এই মাদ্রাসায় ইসলামী শিক্ষা গ্রহণ করছি। আমরা কক্ষের অভাবে পরিত্যক্ত ঝুঁকিপূর্ণ কক্ষেই গাদাগাদি করে পাঠ গ্রহণ করছি। এছাড়াও মাদ্রাসার নিরাপত্তা প্রাচীর নেই, মেয়েদের জন্য নেই কমন ও ওয়াশ রুম, আধুনিক মানসম্মত বহুতল ভবন, নেই শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব ও গ্রন্থাগার। যার কারণে আমরা গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা প্রতিনিয়তই যুগোপযোগী ইসলামী শিক্ষার অনেক কিছু থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। আমরা সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে পাঠ গ্রহণ করতে পারছি না।

মাদ্রাসা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও দাতা সদস্য রুহুল আমীন বলেন, আমার মায়ের ইচ্ছে পূরণের লক্ষ্যেই প্রায় ৯৮ শতাংশ জমির ওপর এই অঞ্চলের ঝড়ে পড়া গরীব, অসহায়, খেটে খাওয়া পরিবারের সন্তানদের মধ্যে ইসলাম শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার জন্যই মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করেছি। প্রতিষ্ঠার পর থেকে অবকাঠামোগত উন্নয়ন থেকে শুরু করে আধুনিকতার কোন ছোঁয়াই এখন পর্যন্ত মাদ্রাসাটিতে লাগেনি। অনেকবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর বিভিন্ন সমস্যার কথা লিখিত ভাবে জানিয়েছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন ফল পাওয়া যায়নি। যদি এই ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো ভেঙ্গে সম্প্রসারণ করে আধুনিক মানের ভবন নির্মাণ করা এবং শিক্ষার্থীদের জন্য সকল সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা হয় তাহলে সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে শিক্ষার্থীরা ইসলাম শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে। ফলে এই প্রত্যন্ত গ্রাম এলাকার মানুষের মধ্যে সন্তানদের মাদ্রাসায় পাঠানোর প্রতি আগ্রহ বাড়বে এবং ঝড়ে পড়া অনেক কমে যাবে। এছাড়াও মাদ্রাসাটিতে যাবার একমাত্র মাটির রাস্তাটিতে বর্ষা মৌসুমে হাটু কাঁদার সৃষ্টি হওয়ায় শিক্ষার্থীরা মাদ্রাসায় যেতে চায় না। অনেক অফিসের দুয়ারে ধর্ণা দিয়েও রাস্তাটিতে এখনো ইট বিছাতে পারিনি।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল বলেন, বর্তমানে ওই মাদ্রাসাটির খুবই করুণ অবস্থা। আমি মাদ্রাসাটি সম্পর্কে সবকিছুই জানি। উপজেলা প্রশাসন ইচ্ছে করলে মাদ্রাসাটিতে যেকোনো উপায়ে সহায়তা করতে পারেন। আমি ঊর্দ্ধতন সকল বিভাগকে মাদ্রাসাটির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে অবগত করেছি। তাদের মর্জি অনুযায়ী ছোঁয়া লাগবে বিদ্যাপিঠটিতে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আল মামুন বলেন, ওই মাদ্রাসার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে পালাম।  সমস্যা চিহ্নিত করে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জানাবো। আশা রাখি এই সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষ দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। এছাড়াও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন কিছু করার সুযোগ থাকলে তা আলোচনা করে প্রদান করার চেষ্টা করবো। 

-এমএ


« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisemnet: 9513663
E-mail: [email protected], [email protected], [email protected], [email protected],   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft